A Complete Guide to Mousuni Island Trip

All you need to know about Mousuni Island

Mousuni Island
Mousuni Island

Have you ever heard the name of Mousuni Island? We guess, many of you don’t. in a tropical paradise like India, we often tend to overlook islands and are attracted more to the inland or the beaches along the coastline and often rush for the already popular destinations. But do you think about the less travelled paths and find the hidden gems of the world? The pollution is increasing so we need to find for the offbeat places to stay away from the polluted world.

Mousuni Island
Mousuni Island is one such example of Virgin Islands that is unknown to most people. This unexplored piece of land of the Sundarban Delta lies hidden in Namkhana district of West Bengal can be one of your favorite weekend destinations. Mousuni island would be the perfect mix of peace and solitude, sunsets and sand beaches with the confluence of the Bay of Bengal and the river.

Origin of the name Mousuni

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni island got its name since the days of the British rule when it was used for transportation of dry fish and salt. ‘Mousuni’ takes its name after the Bengali terms “mosh ani” that means bringing the buffaloes. While the British came to this land for inspection, they didn’t find anybody inhabiting there except a group of people who came there daily. When they were asked the reason of going there every day, they replied, ‘mosh ani’, that is, they bring buffaloes there every day to feed them. Hence goes the name “Mousuni”. Agriculture and fishing lie as the mainstay of the people here.

Location

Mousuni Island
Mousuni Island is located at the confluence (mohana) near Sagardeep towards the bottom of the state of west Bengal. The land here seems to be ending and gradually crawling into the deeper sea waters. The island is open on three sides ajar to the sea. You feel the essence of the silent river Ganga as well as the turbulence of the Bay of Bengal.

The sufferings of Mousuni

Mousuni Island
Mousuni is as beautiful as other serene islands of India, but climate has hit hard on it several times. Climatic changes have shaken the lives of the people living here. But the region has fought back and has developed with a rapid growth in population. Tourism is flourishing here but there are no luxury hotels or resorts, the people here have strived to make your stay comfortable in mud huts and tents. Energy services lack here and they depend on solar electricity. On top of that, the global climatic changes have brought unpredictable rainfall, rising sea levels, extreme weather conditions and coastal erosions that has increased the difficulties of the people there more and more.

Where should you stay

Mousuni Island

Faraway form the urban sophisticated lifestyle, Mousuni Island is closer to nature so you can lead a simple holiday in a tent or a cottage without television, ACs and geysers. Alifiia tents are clean and have four clean common toilets; we provide you fresh bed sheets, clean pillows and warm blankets, to give you an overall feel of coming back to your home. With a comfortable bedding, you get the essence of forest aura, rural life surrounding you, seashores and the music of the waves coming to and fro. You can fulfil your dream of sleeping under the moonlit sky and watching the stars which seems next to impossible in the urban cities.

Mousuni Island

Alifiia owns property in Mousuni Island and have their wide bunch of tents, an amalgamation of purity and solace. We try to blend an enjoyable stay with the pure natural environment in three categories of tent bookings:

Mousuni Island
Mousuni Island

  1. Adventure or Dome tents
  2. Family tents
  3. Mud-houses or cottages

Mousuni Island

Things to do in Mousuni island

Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island
Mousuni Island
There is a lot to do in Mousuni island besides beholding nature’s beauty at the shores. You can explore much by roaming through the villages there and meet the local people for a heart to heart conversation. Kakramarir Chor is the ideal abode for the bird watchers where you can watch several colourful bird species, you must carry a pair of binoculars.

You can enjoy the boat rides and enjoy the view of the confluence of the river and the sea. You can also please yourselves by the heavenly views of the magical sunrise or sunset at the beach for a mesmerizing experience while strolling around the beach.

Mousuni Island Hotel Booking
Mousuni Island Hotel Booking
You can also relax in a hammock on the beach and simply enjoy the riverine landscape with a cup of tea or coffee or read a novel, with calmness and peace of mind. Or you can simply walk along the beach early morning or an evening walk to feel the cool breezes and the smooth waves stroking and soothing your feet.

Mousuni Island
Mousuni Island
You can explore the simple life of the villagers, listen to the folklores of the fishermen colonies, make new friends and listen to the wonderful stories and experiences shared by them about the life in Mousuni. You can also go for fishing or play games with the local children.

Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island
Beach cycling and volleyball can be a real treat to your tired souls jammed in the materialistic trap of the city life. Campfires and barbeques are an essential part to fulfil your Wishlist in the things-to-do in Mousuni Island.

Mousuni Island

Mousuni Island

All these and a lot of others to do, Alifiia brings to you the perfect outing with friends, family or your loved ones in Mousuni Island- the magical weekend getaway for tranquillity.

Mousuni Island

A helping hand to Mousuni island

Mousuni Island Hotel Booking
Mousuni Island Hotel Booking
Want to help these people and save Mousuni Island to survive as one of the exotic islands in India?

Mousuni Island
You don’t have to donate money or arrange for a relief fund, just give the island a visit. Spend a day or two there and it would help them a lot and the indigenous people would get immense help from your small trip on Mousuni island. This simple but sweet tourism spot needs your helping hand.

Mousuni Island

Alifiia forms an integral part of tourism in Mousuni island and always focuses on helping the inhabitants there and in the development of this beautiful island. We employ only the local people there for all areas of service for manpower and we also look into the fact for women empowerment. Your little step can bring a hell lot of difference in the livelihood of the people there and improve their lives.

Mousuni Island
Mousuni Island

You can also join in the initiative with us to educate the local kids and sponsor their education. You can also donate your books to the local schools. There are very less schools in this area so we have an upcoming project to set up a school for the local children and help them grow.

Best season to visit Mousuni Island

Mousuni Island

The best time to visit Mousuni Island is during November-March. Winters and spring are the ideal time to enjoy the shores and experience a peace of mind, much away from the chaos of city life.

You can visit at any time of the year but hot and humid summers might be more of a burning session than holidaying because of its proximity to the beach. Monsoons are a bit risky due to the high alert near the sea and the thunderstorms.

Mousuni Island

Easy reach to Mousuni Island from Kolkata

Mousuni Island

You need to reach Namkhana by local train or bus, take a toto for Namkhana Bus stand. Then you need to take a Toto for Baghdanga Ghat or Hujjat Ferry Ghat. The Hujjat Ferry Ghat is itself a beautiful place to visit, surrounded by mangrove forests so you can walk around the place and meet the local people there, get to know their lifestyle.

Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island
Mousuni Island

You need to cross the Chinai River by boat and reach Mousuni Island, the much awaited destination.

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island

Mousuni Island

দূরে নির্জনে মৌসুনি দ্বীপ

দূরে নির্জনে মৌসুনি দ্বীপ

অফিসের একঘেয়েমি রোজনামচা থেকে কিছু দিন ছুটির প্রয়োজন ছিল | তাই সপ্তাহান্তে ছুটি কাটানোর জন্যে দীঘা, মন্দারমণি, শঙ্করপুর এর বেড়াজাল পেরিয়ে খোঁজ করতে লাগলাম নতুন জায়গার | মৌসুনি দ্বীপ এর নাম শুনে সেখানে যাওয়ার এবং থাকার তথ্য সংগ্রহ করতে শুরু করলাম | ছবি এবং YouTube এর কিছু ভিডিও দেখে যা বুঝলাম, সমুদ্র এর শান্ত গাম্ভীর্যকে উপভোগ করতে এর থেকে ভালো জায়গা আর নেই | পৌঁছানোর পর বুঝলাম, শহরের ব্যস্ততা আর কোলাহল থেকে কিছুটা দূরে নির্জনে দুটোদিন নিখাদ বিশ্রাম এর জায়গা হিসেবে মৌসুনির কোনো তুলনা হয়না |

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island

যেমন ভাবা তেমন কাজ | সঙ্গী হিসাবে পেয়ে গেলাম আমার দুই শালা এবং এক জামাইবাবু | থাকার জায়গার খোঁজ নিয়ে দেখলাম বেশ কিছু সংস্থা সেখানে ক্যাম্প এ থাকার ব্যবস্থা করেছে | ক্যাম্প ছাড়াও রয়েছে “Mud House” বা মাটির বাড়ি এবং দর্মা আর খড়ের ছাউনি দিয়ে তৈরী কটেজ | আমার অফিস এর এক সহকর্মী বন্ধু কে ব্যাপারটা বলতে, সে জানালো কয়েকদিন আগে সেইরকম ই একটা ক্যাম্প এ সে থেকে এসেছে এবং সেটার ব্যবস্থাপক তারই ভাই | ব্যাস, তার ভাই এর সাথে কথা বলে বুক করে ফেললাম Alafiia, Traveller’s Camp (www.alafiia.com) | ৭ এবং ৮ সেপেটম্বের এর জন্যে অনলাইন পেমেন্ট করে বুক করলাম দুটো কটেজ | সাথে সাথে ফোনে পেয়ে গেলাম বুকিং কনফার্মেশন মেসেজ এবং ক্যাম্প ম্যানেজার এর কন্টাক্ট নম্বর |
এখানে ৩ রকম এর থাকার জায়গা পাওয়া যাবে |
Adventure Dome Tent: ₹1050/- each person per day
4 Persons in a Family Tent: ₹1150/- each person per day
2-3 Persons in a Cottage House: ₹1250/- each person per day
উপরোক্ত সব রেন্ট গুলো থাকা এন্ড খাওয়া নিয়ে (ওয়েলকাম ড্রিংক, লাঞ্চ, ডিনার, ব্রেকফাস্ট) |
৭ তারিখ সকালে শিয়ালদহ থেকে ৫:১২ এর নামখানা লোকাল এ চেপে পড়লাম | ট্রেনটি পথে সব স্টেশন এই দাঁড়ালো কিন্তু লক্ষ্মীকান্তপুর এ নিলো প্রায় ২০ মিনিট এর হল্ট | শেষমেশ ৮:০৫ এ নামলাম নামখানা স্টেশন এ | স্টেশন থেকে বেরিয়ে একটা টোটোর সাথে দরদাম করে ২৫০ টাকা এ পৌঁছে গেলাম হুজ্জাত এর ঘাট | সময় নিলো প্রায় ৪০ মিনিট | পেরোলাম নতুন তৈরি হওয়া হাতানিয়া দোয়ানিয়া ব্রিজ | মাঝে একজায়গায় কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে মুড়ি, ঘুগনি আর ডিম্ এর ওমলেট দিয়ে সেরে নিলাম সকাল এর জলখাবার | এখানে বলে রাখি, সরাসরি টোটো ছাড়াও হুজ্জাত এর ঘাট যাওয়ার আরো সাশ্রয়ী উপায়ও আছে | স্টেশন থেকে ২-৩ মিনিট হেঁটে গেলে ই পাবেন বাস স্ট্যান্ড | সেখান থেকে বকখালি যাওয়ার বাসে উঠে “সাত মাইল” নামতে হবে | ভাড়া জনপ্রতি ১২ টাকা | ওখান থেকে ভ্যানে করে হুজ্জাত এর ঘাট | ভাড়া জনপ্রতি ৮ টাকা | হুজ্জাত এর ঘাট থেকে ৩ টাকা ভাড়া দিয়ে চিনাই নদী পেরোলাম | সেখান থেকে টোটো করে পৌঁছে গেলাম Alafiia, Traveller’s Camp | ভাড়া জনপ্রতি ৩০ টাকা এবং সময় নিলো ৩০ মিনিট |
কটেজে ব্যাগ রেখে বেরিয়ে পড়লাম সীমাহীন সমুদ্র এর সাথে প্রথম আলাপ সেরে নিতে | ক্যাম্প এর একটি ছেলে সেখানে নিয়ে এলো সদ্য পেড়ে আনা ডাব এর জল | সেই জল পান করে গলা এবং ঢেউ এর সাথে ভেসে আসা স্নিগ্ধ বাতাস মেখে মন, দুইই জুড়িয়ে গেলো | ফিরে এসে পরিচয় হলো ক্যাম্প ম্যানেজার নিত্যানন্দ দাদা র সাথে | ঘুরিয়ে দেখালেন ক্যাম্প চত্বর | দেখলাম একটি ছোট এবং একটি ফ্যামিলি টেন্ট বসানো হচ্ছে আগত কিছু অতিথির জন্যে |
এরপর গেলাম সমুদ্র স্নানে | স্নানের সাথে চললো স্থানীয় কচিকাঁচাদের সাথে ফুটবল খেলা | খেলা এবং স্নানের শেষে সেরে নিলাম মধ্যাহ্নভোজন | আয়োজন ছিল ভাত, ডাল, বেগু ভাজা, আলু পটল এর তরকারি, পোনা মাছের ঝাল, চাটনি এবং পাঁপড় | আমরা আগেই ফোনে বলে রেখেছিলাম সাথে ভেটকি মাছ খাবো | সেইমতো ক্যাম্প এর পেছনে মাছ এর আড়ৎ থেকে এনে রাখা মাছ ভাত এর সাথে গরম গরম ভেজে দিলো | অতুলনীয় তার স্বাদ | খাওয়া শেষে কটেজ গেলাম বাঙালীর চিরাচরিত দিবানিদ্রা সম্পন্ন করতে | আসলে সেই ভোরে ওঠা এবং তারপর এতটা পথ এসে একটু জিরিয়ে নেওয়াই যায় | কি বলুন ?
ঘুম ভাঙলো পড়ন্ত বিকেলে পাখিদের ঘরে ফেরার ডাকে | কটেজ থেকে বেরিয়ে বুঝলাম কখন এক পশলা বৃষ্টি হয়ে আকাশ আবার তার চিরাচরিত স্নিগ্ধ নীল চাদরে নিজেকে ঢেকে নিয়েছে | বেলাভূমিতে সূর্যাস্ত দেখে ফিরে এলাম চা এর টানে | চা এর সাথে ছিল মুড়ি আর সব্জি পাকোড়া | চা পর্ব শেষ করে আবার ফিরে গেলাম বেলাভূমিতে | ততক্ষন এ হওয়ার গতিবেগ কয়েকগুন বেড়ে গেছে | যত রাত বেড়েছে হওয়ার বেগ ও বেড়েছে পাল্লা দিয়ে | ডিনার এর পর যত রাত অবধি আমরা সমুদ্র প্রান্তরে ছিলাম, এই হওয়ার বেগ ছিল অবিরাম | চা মুড়ির পর একটু হেঁটে ফিরে আসার পর দেখলাম ক্যাম্প ফায়ার এর ব্যবস্থা হচ্ছে | ইঁট দিয়ে চারকোনা খোপ করে তার মধ্যে কাঠ সাজিয়ে রাখা হয়েছে | পাশে টেবিলে রাখা মশলা মাখানো চিকেন | আয়োজন হচ্ছে বার্বেকেউ চিকেন এর | আমাদের অর্ডার মতো ১ কিলো চিকেন এনে ম্যারিনেট করে রেখেছে | এই ব্যাপারটা কিন্তু থাকা এবং খাওয়ার প্যাকেজ এর বাইরে | রান্নার খরচ নিয়ে কেজি প্রতি ৩৫০ টাকা | ক্যাম্প ফায়ার আর বার্বেকেউ চিকেন এর সাথে সন্ধেটা এক কথায় অপূর্ব কাটলো | রাত ১১ টার সময় ডিনার সারলাম রুটি, আলুভাজা আর চিকেন করি দিয়ে | চাইলে ভাত ও পাওয়া যাবে | ডিনার এর পর আরো কিছুক্ষন হাঁটাহাঁটি করে কটেজে এসে ঘুমিয়ে পড়লাম |
পরদিন পরিকল্পনা ছিল খুব ভোরে উঠে যাবো কিছু ভালো ছবি তুলতে | কিন্তু বরুণদেব এর অশেষ কৃপায় সকাল ৭ টার আগে সেটা আর সম্ভব হলো না | ১০:৩০ এ বেরোতে হবে তাই একটু চা সেবা করে বেরিয়ে পড়লাম আরো একবার বেলাভূমিতে ফুসফুসের অক্সিজেন এর সিলিন্ডারটা ভরে নিতে | মাঝে একবার এসে লুচি, তরকারি আর ডিম্ সেদ্ধ সহযোগে সেরে নিলাম সকালের জলখাবার | ফিরে এসে স্নান করে মৌসুনি আর Alafiia Traveller’s Camp কে বিদায় জানিয়ে ফিরে চললাম বাড়ির পথে | নামখানা স্টেশন থেকে ১:৩০ এর লোকাল ধরে ফিরে এলাম কলকাতার জনসমূদ্রে | পেছনে পরে রইলো মৌসুনির হাতছানি | অজান্তেই পেছন ফিরে তাকিয়ে মন বলে উঠলো “আবার হবে তো দেখা, এ দেখাই শেষ দেখা নয়তো” |
বি.দ্র. লেখার ভুল ত্রূটি মার্জনীয় |

Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island
Mousuni Island

দীর্ঘ অপেক্ষারত মৌসুনি

দীর্ঘ অপেক্ষারত মৌসুনি

কখনও গান সমেত ফুল ভলিয়্যূমে কানে হেড ফোন লাগিয়ে বাস এর উইন্ড সিটে বসলে যে ঝোড়ো হাওয়ার শন-শন শব্দ শোনা যায় যেন তার থেকেও তীব্র হাওয়ার সাড়া আর সেই তৃপ্তির আনন্দে মাথার চুলগুলোও যখন পোষ মানে না ; অথবা অকাল শরতের মেঘ দিক নির্দেশক হয়ে গন্তব্যে পৌঁছে দেবার ফন্দি আটে ; যেন আমাদেরি জন্য দীর্ঘ অপেক্ষারত মৌসুনি পায়ের কাছে এসে নিজেকে বিলীন করে ; মাথার ওপর খোলা কালো আকাশ ঝিকিমিকি তারার দল আর পাগল করা হাওয়া নিঃসঙ্গ আমিকেও যখন সঙ্গ দেয় ; কিংবা গ্রাম বাংলার মাটির গন্ধ আর স্নিগ্ধ বাতাস সারা গা ছুঁয়ে যায় ; বেনামি একদল অচেনা মুখ নিমেষে যখন আপন হয় তখন মনে হয় এটার খোঁজেই তো ছুটে আসা ; তাই সত্যিই আজ এই কথাটা “সত্যি” লাগে- ‘নদীর এপার কয় ছাড়িয়া নিঃশ্বাস/ওপারে সর্ব সুখ আমার বিশ্বাস’ । এই বিশ্বাস নিয়েই মৌসুনিতে বারে বারে আমি যেতে চাই। কারন প্রকৃতি প্রেমি জীবনানন্দ দাশ -র ‘বনলতা সেন’ এর মত মৌসুনিও যেন আমার কাছে – “আরও দূর অন্ধকার বিদর্ভ নগরে আমি ক্লান্ত প্রাণ এক, চারিদিকে জীবনের সমুদ্র সফেন, আমারে দুদণ্ড শান্তি দিয়েছিল নাটোরের বনলতা সেন” ।।

Call Now Button
WhatsApp WhatsApp us